প্রযুক্তি

বিশ্বের একমাত্র গ্রাম,যেখানে কোন বাড়িতে নেই দরজা

কখনো কি কল্পনা করেছেন,এমন বাড়ির কথা যেখানে দরজা নেই!বা এমন কোন গ্রাম যে গ্রামে কোন বাড়িতেই নেই দরজা।শুনতে খুব অবাক লাগছে তাই না?দরজা ছাড়া বাড়ি এ আবার কেমন কথা!অবাক করার বিষয় হলেও সত্যি এমনই এক গ্রাম রয়েছে ভারতের মহারাষ্ট্রে অবস্থিত আহমেদনগর জেলায়। যার নাম শনি শিংনাপুর। ১ কিলোমিটার আয়তন বিশিষ্ট এ গ্রামে রয়েছে ২০০ টি বাড়ি।গ্রামের জনসংখ্যা প্রায় ৪ হাজার।এ গ্রামের বেশিরভাগ মানুষই কৃষক।কৃষি ই তাদের জীবিকার প্রধান মাধ্যম।

এই গ্রামের কোন বাড়িতেই নেই কোন দরজা।তারা শনি দেবতার পূজা করেন এবং তাদের বিশ্বাস শনি দেবতাই তাদের ঘরকে নিরাপদ রাখবে এবং তাই তারা তাদের ঘরে দরজার ব্যাবস্থা রাখেন না। শুধু বাড়ি ঘরে দরজা নেই,ব্যাপারটা কিন্তু এমন নয়;শহরের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান,হোটেল,কোথাও মিলবে না কোন দরজার দেখা।নেই কোন তালা-চাবির দোকান।

প্রচলিত তথ্যমতে,স্থানীয় মেশ পালকরা ১৭০০ শতকের দিকে একটি কালো পাথর খুজে পায় উদ্ধারের পর লাঠির আঘাতে পাথরটি থেকে রক্ত বের হতে শুরু করে।সেই রাতে এক মেশ পালক ভগবান শনিকে স্বপ্নে দেখেন, স্বপ্নে মেশপালক ভগবান শনির নিকট মন্দির নির্মানের অনুমতি প্রার্থনা করেন।ভগবান শনি তাকে বলেন, তার মাথার উপর কোন ছাঁদের দরকার নেই,পুরো আকাশ ই তার ছাঁদ। এছাড়া বলেছিলেন, এ গ্রামে কখনোই কোন চুরির ঘটনা ঘটবে না।তখন থেকেই এই গ্রামের নাম হয় শনি শিংনাপুর।

এ গ্রামের ঘরগুলোতে নিরাপত্তা রক্ষার্থে ব্যাবহার করা হয় মোটা কাপড়ের পর্দা। অসৎ কাজ করলে কিংবা গ্রামে চুড়ি করার চেষ্টা করলে ভগবান শনি শাস্তির ব্যবস্থা করবেন এমনটা ই বিশ্বাস গ্রামের বসবাসকারী মানুষদের।

শনি শিংনাপুর গ্রামে স্থাপিত হয়েছে ভগবান শনির উপাসনালয়। বেদির উপর ১.৫ মিটার উচ্চতার কালো মনো নিত পাথর রাখা হয়েছে।একটি পাত্র থেকে অবিরাম সরিষার তেল ঝরে পড়ছে প্রতিমার উপর।মন্দিরটি খোলা থাকে ২৪ ঘন্টা ই।প্রতিদিন চল্লিশ হাজারের ও বেশি দর্শনার্থী এখানে আসেন।

সহজ সরল জীবন যাপন করা এই মানুষগুলো যথেষ্ট অতিথিপরায়ণ ও।এমন দরজা খোলা গ্রাম আর গভীর ধর্ম অনুরাগ বর্তমান সময়ে আধুনিক বিশ্বে খুঁজে পাওয়া দুষ্কর।

Show More

এই জাতীয় আরো পোস্ট

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button