জীবনী

সুলতান হাসানাল বলকিয়াহঃ বিলাসিতায় পরিপূর্ণ যার জীবন

ইতিহাসের পাতা উল্টালে বহু শাসক, বীরসেনা ও রাষ্ট্রনায়কের নাম শোনা যায়। যারা এই পৃথিবীতে বেঁচে থাকাকালীন নিজেদের সম্রাজ্য আর ক্ষমতার দাম্ভিকতা দেখিয়ে গেছেন। ক্ষমতার জানান দেওয়ার জন্য লিপ্ত থেকেছেন বিভিন্ন যুদ্ধবিগ্রহে। এর বাইরে নিজেদের আরাম-আয়েশ আর বিলাসী জীবনের জন্য করেছিলেন শান-শওকাত, যা আজও শতাব্দীর পর শতাব্দী মহিরূপে দাঁড়িয়ে আছে।

পুরনো দিনের রাজারাজড়াদের সেসব গল্পের ঠাই হয়েছে ইতিহাসের পাতায়। তবে ব্রুনাইয়ের সুলতানের ক্ষেত্রে খাটছে না এ কথা। তার ধনসম্পত্তির পরিমাণ ও বিলাসবহুল জীবনের কথা শুনলে অনেকেরই চোখ কপালে উঠতে পারে।

ব্রুনাইয়ের বর্তমান সুলতান হলেন, তৃতীয় হাসানাল বলকিয়াহ ইবনে ওমর আলি সাইফউদ্দীন। তবে গোটা বিশ্ব তাকে হাসানাল বলকিয়াহ নামেই চেনে। বলকিয়াহ ১৯৪৬ সালের ১৫ জুলাই ব্রুনাই টাউনে (বর্তমান নাম বন্দর সেরি বেগাওয়ান) জন্মগ্রহণ করেন। তিনি স্যার মুদা তৃতীয় ওমর আলী সাইফুদ্দিন এবং রাজা ইস্তেরি পেনগিরান আনাক (রাণী) এর বড় ছেলে। 

ছোটবেলায় নিজেদের প্রাসাদেই প্রাথমিক শিক্ষা পাঠ প়ড়ানো হয়েছিল তাকে। পরবর্তীতে কুয়ালালামপুরের ভিক্টোরিয়া ইনস্টিটিউশনে মাধ্যমিক শিক্ষা অর্জন করেন তিনি। এরপর ১৯৬৭ সালে, যুক্তরাজ্যের রয়্যাল মিলিটারি একাডেমি স্যান্ডহার্স্ট  থেকে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন তিনি।

তার পিতা ১৯৬৭ সালের ৪ অক্টোবর, সিংহাসন ত্যাগের পর ব্রুনাইয়ের সুলতানের গদিতে বসেন তিনি। ১৯৬৮ সালের ১ আগস্ট, তার অভিষেক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয় এবং তিনি ব্রুনাইয়ের ইয়াং দি পেরতুয়ান (সর্বোচ্চ নেতা) হন। পিতার মতো তিনিও যুক্তরাজ্যের রাণী দ্বিতীয় এলিজাবেথ এর নিকট থেকে নাইট উপধি পান।

সেই থেকে এখন ৭৫ বছর বয়সেও রাজ্য সামলে চলেছেন বলকিয়াহ। ২০১৭ সালের ৫ অক্টোবর শাসনকালের ৫০ বছর পূর্তি উৎসব পালন করেন তিনি। উত্তারাধিকার সূত্রে বাবার কাছ থেকে পাওয়া এই ক্ষমতায় নিজের একচ্ছত্র আধিপত্য ব্রুনাইয়ের এই সুলতানের। এছাড়াও সুলতান হাসানাল বলকিয়াহই দেশটির সর্বোচ্চ ইসলামিক নেতা। একাধারে তিনি দেশটির প্রধানমন্ত্রী, অর্থমন্ত্রী, পররাষ্ট্র, প্রতিরক্ষামন্ত্রী ও বাণিজ্যমন্ত্রী। একদিকে পুলিশ সুপার হিসেবে দায়িত্ব সামলাচ্ছেন; অন্যদিকে আবার সশস্ত্র বাহিনীর প্রধানও তিনি নিজেই। এমনকি ব্রুনাই এর জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলরও তিনি।

বিশ্বের সব সুলতানদের মধ্যে প্রথম সারিতে রয়েছেন বলকিয়াহ। ১৯৮৮ সাল পর্যন্ত তিনিই ছিলেন বিশ্বের সবচেয়ে ধনী ব্যক্তি। সে সময় তার নিট সম্পত্তির পরিমাণ ছিল ১৪ হাজার ৭০০ কোটি টাকা। 

অস্ট্রেলিয়াভিত্তিক সংবাদমাধ্যম নিউজ ডটকম এর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ব্রুনাইয়ের সুলতানের ব্যক্তিগত সম্পদের পরিমাণ ২৭.৭ বিলিয়ন ডলার। বিশ্বের সবচেয়ে সম্পদশালী শাসকদের একজন তিনি। বিপুল সম্পদ আর ভোগবিলাসে লিপ্ত থাকা ব্রুনাইয়ের সুলতানের রয়েছে প্রাইভেট জেট বিমানের বহর। শোনা যায়, একবার তার বার্থডে পার্টিতে গান গাইতে মাইকেল জ্যাকসনকে নাকি নিয়ে আসা হয়েছিল।

প্রায় সাড়ে চার লাখ জনসংখ্যার এই দেশটি তেল ও গ্যাস রপ্তানি করে সম্পদশালী হয়েছে বহু আগ থেকে। 

যদিও দেশটির জনসংখ্যার একটি বিশাল অংশ এখনও দারিদ্র্যের মধ্যে বসবাস করে। কিন্তু কথিত আছে, তেলসম্পদ থেকে ব্রুনাইয়ের সুলতানের প্রতি সেকেণ্ডে আয় ১৪৭ ডলার বৃদ্ধি পাচ্ছে। 

পৃথিবীর সবচেয়ে বড় রাজকীয় প্রাসাদে বসবাস করেন এই সুলতান। যার নাম ‘ইনস্তানা নুরুল ইমান প্যালেস’। এর নকশা বানিযেছিলেন লিয়ান্ড্রো ভি লকসিন। এই প্রাসাদটি ২০ লাখ বর্গফুট এলাকা জুড়ে বিস্তৃত। প্রাসাদটি বহু সোনা ও হীরকখণ্ড দ্বারা সজ্জিত করা হয়েছে। প্রাসাদের চূড়া ২২ ক্যারাট সোনা দিয়ে তৈরি। ব্রুনাই নদীর তীরে অবস্থিত এই রাজকীয় প্রাসাদের বর্তমান বাজারমূল্য ২ হাজার ৫৫০ কোটি টাকা। এতে ১৮০০ কামরা এবং ২৫৭টি বাথরুম রয়েছে। এছাড়াও পাঁচটি সুইমিংপুল, কয়েকটি মসজিদ এবং ১১০টি গ্যারেজ রয়েছে। এই প্রাসাদে রয়েছে বহু হেরেমও। ২০০টি ঘোড়ার জন্য শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত আস্তাবলও রয়েছে। প্রাসাদের ব্যাঙ্কুয়েট হলে ৫ সহস্রাধিক অতিথি অবস্থান করতে পারে।

সোনার প্রাসাদে বসবাস এই রাজার

চিত্রঃ ইনস্তানা নুরুল ইমান প্যালেস

ধনসম্পত্তির মালিক হওয়ার পাশাপাশি তা খরচ করাতেও কম উৎসাহী নন ব্রুনাইয়ের ৯২তম সুলতান।  বিলাসবহুল গাড়ির বিষয়ে অতি আসক্তি রয়েছে তার। ‘হটকারস রিপোর্ট’ নামের এক ওয়েবসাইটের তথ্য অনুসারে, তার ১১০টি গ্যারেজে রয়েছে প্রায় ৭ হাজার গাড়ি। এরমধ্যে রয়েছে ৩৬৫টি ফেরারি, ২৭৫টি ল্যাম্বারগিনি, ২৫৮টি অ্যাস্টন মার্টিন, ১৭২টি বুগাটি, ৬০০ রোলস রয়েস, ৪৪০টি মার্সিডিজ বেন্‌জ, ২৬৫টি অডি, ২৩৭টি বিএমডব্লিউ, ২২৫টি জাগুয়ার, ১৮৩টি ল্যান্ড রোভার। যার সর্বমোট মূল্য ৫০০ কোটি ডলারেরও বেশি।

এর বাইরে প্রাইভেট প্লেনের একটি বহর রয়েছে এই সুলতানের। এই বহরে রয়েছে ১৩৮ মিলিয়ন ডলার মূল্যমানের এয়ারবাস, ২৫১ মিলিয়ন ডলার মূল্যমানের বোয়িং ৭৬৭ প্লেন এবং বিশেষ ধরনের বোয়িং ৭৪৭ প্লেন। এই প্লেনের দাম ৪৩১ মিলিয়ন ডলার। এই প্লেনটি স্বর্ণ দিয়ে সজ্জিত করা হয়েছে।

সোনায় মোড়া বিমানে চড়েন সুলতান হাসানাল

চিত্রঃ সুলতানের সোনায় মোড়া বিমান

বিলাসী এই সুলতান প্রতিমাসে অন্তত একবার নিজের চুল কাটান। প্রাইভেট প্লেনে চড়ে তার প্রিয় স্টাইলের চুল কাটতে সেলুনে যান তিনি। টাইমস পত্রিকা দাবি করেন, ৩-৪ সপ্তাহ পরপর তার চুল কাটাতে খরচ পড়ে প্রায় ১৭ লাখ ২২ হাজার টাকা। লন্ডন নিয়ে যাওয়া হয় তার হেয়ারড্রেসার। তাকে প্রথম শ্রেণির বিমানভাড়ার ১২ হাজার ডলারও সুলতানই দেন। শুধু তাই নয়, ম্যাচিং করে জুতা পরে হেলিকপ্টারে চড়ে তিনি কেনাকাটায় বেরিয়ে পড়েন।

প্রথাগত পড়াশোনার পাট চুকিয়ে বিয়ে করেন সুলতান বলকিয়াহ। তবে ১টি নয়, ৩টি! সুলতান তার জ্ঞাতি বোন পেনগিরান আনাক সালেহাকে বিয়ে করেন, যিনি তার প্রথম স্ত্রী এবং পরবর্তীতে রাজা ইস্তেরি বা রাণী হন। তার ২য় স্ত্রী আইশা মারিয়াম ছিলেন রয়েল ব্রুনাই এয়ারলাইন্স এর সাবেক ফ্লাইট এটেন্ডেন্ট। ২০০৫ সালের আগস্টে, মালয় টিভি উপস্থাপিকা আজরিনাজ মাজহার হাকিম কে বিয়ে করেন তিনি। ২০১২ সাল পর্যন্ত তিনি পাঁচ পুত্রসন্তান এবং সাত কন্যাসন্তানের জনক বলে শোনা যায়।

সুলতান বলকিয়াহ ২০০৫ সালে, মস্কো স্টেট ইউনিভার্সিটি ফর ইন্টারন্যাশনাল রিলেশন্স থেকে সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রি গ্রহণ করেন। তিনি অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়, যুক্তরাজ্য থেকে জক্টর অব লজ ডিগ্রি লাভ করেন। এ ছাড়া তিনি থাইল্যান্ড, ইন্দোনেশিয়া, যুক্তরাজ্যসহ বিশ্বের  বিভিন্ন দেশের বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সম্মাননাসূচক একাডেমিক ডিগ্রি লাভ করেছেন।

৭৫ বছর বয়সী এই সুলতান সম্ভব বত বর্তমান সময়ের এমন একজন ব্যক্তি যিনি কিনা তার জীবন দশায় সকল আসা পুরন করতে সক্ষম হয়েছেন।

Show More

এই জাতীয় আরো পোস্ট

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Check Also
Close
Back to top button