জীবনীসাম্প্রতিক

শামসুন্নাহার স্মৃতি থেকে চিত্রনায়িকা পরীমণি

বাংলাদেশের জনপ্রিয় নায়িকা পরীমণিকে নিয়ে এই মুহূর্তে উত্তাল গোটা বাংলাদেশ। প্রথমে ধর্ষণ এবং তারপর হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে বলে অভিযোগ এনেছেন তিনি। ইতিমধ্যেই থানায় গিয়ে অভিযোগ দায়ের করলেও সেখান থেকে কোনও সাড়া মেলেনি। তারপর সোশ্যাল মিডিয়াতে সরাসরি প্রধানমন্ত্রী শেখ-হাসিনার কাছে সুবিচারের দাবি তুলেছেন পরীমণি। 

এটাই প্রথম নয়। এর আগেও অসংখ্য কারণে বারবার শিরোনাম হয়েছেন পরীমণি। হয়েছেন আলোচিত এবং সমালোচিত। 

আজ চলুন জেনে আসি পরীমণির মিডিয়া জগতে আসার পেছনের গল্প।

পরীমণির আসল নাম শামসুন্নাহার স্মৃতি। জন্মগ্রহণ করেন ১৯৯২ সালের ২৪ অক্টোবর নড়াইল জেলায়। খুব ছোটবেলায় মা ও বাবাকে হারান তিনি। পরবর্তীতে বড় হয়েছেন পিরোজপুরে নানা শামসুল হক গাজীর কাছে। সেখান থেকেই তিনি তার মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিক শেষ করেন। সাতক্ষীরা সরকারি কলেজে বাংলা বিভাগে ব্যাচেলর অফ আর্টস (বিএ) (সম্মান) এ পড়াকালীন ২০১১ সালে ঢাকায় চলে আসেন এবং বুলবুল ললিতকলা একাডেমি (বাফা)য় নাচ শেখেন।

কয়েকটি টিভি নাটক আর বিজ্ঞাপনে কাজের পরপরই ভাগ্যের শিকে ছিড়ে যায় তার। সুযোগ পান বড় পর্দায়। জানা যায়, অভিনেত্রী চম্পা’র অনুপ্রেরণায় সিনেমা জগতে প্রবেশ করেন তিনি।

২০১৫ সালে, ‘ভালোবাসা সীমাহীন’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে তার বড় পর্দায় অভিষেক হয়। ওই বছরেই ‘রানা প্লাজা’ ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হয়ে তিনি আলোচনায় আসেন।

মুক্তির আগেই ২৩টি চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য চুক্তিবদ্ধ হয়ে রীতিমত হৈ চৈ ফেলে দিয়েছিলেন পরীমণি। ছবি মুক্তির আগেই মিডিয়ায় নানা ধরনের খবরের জন্ম দিয়ে আলোচিত-সমালোচিত হয়েছেন তিনি।

এরপর গত ৬ বছরে অভিনয় করেছেন ২৪টি ছবিতে। মুক্তির অপেক্ষায় আছে আরও ৬ সিনেমা। তার অভিনীত মুক্তি পাওয়া দুই ডজন সিনেমার মধ্যে মাত্র একটি ছবি কিছুটা ব্যবসায় করতে পেরেছে। তারপরও কখনই কমেনি অভিনয়ের অফার। বরং সমকালীন অন্যদের চেয়ে সেটি কয়েকগুণ বেশি।

তার অভিনীত উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্র হলঃ আরো ভালোবাসবো তোমায়, মহুয়া সুন্দরী, স্বপ্ন জাল, এবং  রক্ত, ধূমকেতু, আপন মানুষ, স্ফুলিঙ্গ, নদীর বুকে চাঁদ, প্রীতিলতা ইত্যাদি।

অভিনয়ের পাশাপাশি স্যান্ডেলিনা সোপ, বনফুল সুইট, যমুনা ফ্রিজ, ফেয়ার অ্যান্ড লাভলিসহ আরো অনেক ব্র‍্যান্ডের বিভিন্ন টিভি কমার্শিয়ালে দেখা গিয়েছে পরীমনি কে।

অভিনয় জগতে আসার আগে তার বিয়ে হয়েছিল এরকম প্রচারণা থাকলেও পরীমনি তা কখনই স্বীকার করেননি। অনেক তরুন ই পরীমনি কে তাদের প্রেমিকা বলে দাবি করেন। তাদের মধ্যে কেবল পুরান ঢাকার এক যুবককেই প্রেমিক বলে স্বীকার করেছিলেন পরী। সাংবাদিক তামিম হাসানের সাথে ২০১৯ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি, তার বাগদান সম্পন্ন হয়। পরবর্তীতে তাদের এনগেজমেন্ট ভেঙে যায়। ২০২০ সালের ৯ মার্চ, তিনি পরিচালক কামরুজ্জামান রনিকে তিন টাকা দেনমোহরে বিয়ে করেন। ঐ বছরেই তাদের বিচ্ছেদ হয়।

গত ১৩ জুন রবিবার, নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে নিজেকে ধর্ষণচেষ্টা, হত্যাচেষ্টা ও শারীরিক নির্যাতনের অভিযোগ করেন পরীমনি। নায়িকা জানান, ঘটনার মূল দোষী (অভিযুক্ত) নাসির ইউ মাহমুদ নামে এক ব্যক্তি। উত্তরা বোট ক্লাব নামে এক ক্লাবের প্রাক্তন সভাপতি তিনি। পেশায় ব্যবসায়ী। গত ৯ জুন বুধবার, রাত ১২টার পর পরিচিতজনদের নিয়ে ওই ক্লাবে গিয়েছিলেন পরীমনি। সেদিন চারজন মদ্যপ ব্যক্তি পরীমনিকে শারীরিক নির্যাতন করে, চড়-থাপ্পড় পর্যন্ত মারেন। এরপর নেশার জাতীয় কিছু খাইয়ে ধর্ষণের চেষ্টাও করা হয় বলে অভিযোগ জানান নায়িকা।

পরদিন সোমবার সাভার থানায় নির্যাতন ও ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগে ঢাকা বোট ক্লাবের এন্টারটেইনমেন্ট অ্যান্ড কালচারাল অ্যাফেয়ার্স সেক্রেটারি নাসির উদ্দিন মাহমুদ ও অমিসহ অজ্ঞাত চার জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন পরীমণি।

এদিনই নাসির উদ্দিন মাহমুদ ও অমিসহ পাঁচজনকে উত্তরা থেকে আটক করে পুলিশের গোয়েন্দা শাখা (ডিবি)। পরে মঙ্গলবার মাদকের আরেকটি মামলায় তাদের আদালতে তোলা হয়। এসময় নাসির উদ্দিন মাহমুদ ও তুহিন সিদ্দিকী অমির সাত দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। এ ছাড়া আসামি লিপি আক্তার (১৮), সুমি আক্তার (১৯) ও নাজমা আমিন স্নিগ্ধাকে (২৪) তিন দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করা হয়।

লেখক- সায়মা আফরোজ (নিয়মিত কন্ট্রিবিউটর AFB Daily)

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

Show More

এই জাতীয় আরো পোস্ট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button